madaari
চলচ্চিত্র

Movie: Madaari (2016) – জাফরুল ইসলাম রাজন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Director: Nishikant Kamat
Genre: Revenge Thriller
Country: India
IMDb: 8.4 (799 Users)

“বাজ(পাখি) ইঁদুরকে আক্রমণ করে, তাকে ধরে নিয়ে যায় । ঘটনা সত্য মনে হয়, কিন্তু মনঃপূত নয় ।
বাজের উপর পালটা আক্রমণ হয় । ঘটনা সত্য নয়, কিন্তু একদম মনঃপূত হয়” ।

কখনও কি খেয়াল করে দেখেছেন আমরা আসলে কোন ধরণের হিরোকে বেশি পছন্দ করি ? কোন গল্পগুলো আমাদের বেশি ভাল লাগে ? খেয়াল করলে দেখবেন যেসব হিরোদের জীবনে ট্র্যাজেডি আছে, যারা জীবনে তাদের সবচেয়ে প্রিয় জিনিসকে হারিয়েছে, আজীবন নির্যাতিত, নিপীড়িত হতে হতে একপর্যায়ে এসে বলেছে, “ব্যাস! অনেক হয়েছে, আর না । এইবার ঘুরে দাড়াবার পালা । প্রতিশোধ এর পালা” এই বলে ভিলেনকে ঢিশুম-ঢাশুম মেরেছে, আমরাও তখন টিভি সেটের বাইরে বসে বলেছি দে শালারে আরও দুইটা । আচ্ছা এর কারণটা কি হতে পারে জানেন ? আমরা নিশ্চিতভাবে জানি যে এইভাবে টিভির বাইরে বলে কোন লাভ হবে না । তারপরও মাঝে মধ্যে মুভি দেখতে দেখতে উত্তেজিত হয়ে যাই, বাইরে বসে এইধরনের রিঅ্যাক্ট করে বসি । এইটার কারণ হতে পারে যে, আমাদের সবার মাঝেই একটা প্রতিশোধ প্রবণতা আছে । মাঝে মধ্যে দেখবেন, রাস্তায় হাঁটার সময় যখন কোন লোককে ক্রস করার জন্য আমরা একটু ডান দিকে যাই তখন সামনের লোকটাও ডান দিকে সরে গিয়ে আমাদের রাস্তা ব্লক করে দেয় । আবার আমরা বাম দিকে যাওয়ার চেষ্টা করলেও সেই লোকটাও বামে সরে আসে । তখন মনে হয় না যে, লোকটারে কষাইয়া একটা থাপ্পড় মেরে সামনে চলে যাই ? কিন্তু আমরা কাজটা করি না । দৈনন্দিন এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ক্ষোভগুলোই আমাদের সাবকন্সাস মাইন্ডে জমা হতে থাকে । এবং বের হয়ার একটা প্ল্যাটফর্ম খুঁজতে থাকে । নায়কের ট্র্যাজেডিকে তখন আমাদের নিজেদের ট্র্যাজেডি মনে হয় । তার ক্ষোভের সাথে সাথে আমাদের ক্ষোভগুলোকেও উদ্গিরন করে দেই । এ জন্যই রিভেঞ্জ মুভিগুলো আমাদের কাছে এত ভাল লাগে । তাই ইঁদুর বাজকে পালটা আঘাত করবে এটা অসম্ভব মনে হলেও আমরা এমনটাই চাই ।

মুভির ঘটনায় চলে যাই । ঘটনাটা ওই ইঁদুর বাজপাখির মতই । মুভির শুরুতেই টিভিতে ব্রেকিং নিউজে দেখায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে । যার হাতে দেশের নিরাপত্তার দায়িত্ব তার ঘরই যখন অনিরাপদ তখন সাধারণ লোকজন কার কাছে যাবে ? দেশের শাসন ব্যাবস্থার প্রতি তাদের শ্রদ্ধাই বা আর কতটুকু থাকবে ? এই আশঙ্কায় ঘটনাটাকে রিউমার বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে মোটামুটি গোপনেই চলতে থাকে ইনভেস্টিগেশন । অপহরণকারী আমার আপনার মতই এক সাধারণ লোক, নির্মল কুমার (ইরফান খান) । ছেলে আপ্পুর জন্মের কয়েক বছর পর নির্মলের স্ত্রী আমেরিকায় কাজের জন্য গিয়ে আর ফিরে আসে নি । তারপর থেকে ছেলেকে ঘিরেই তার দুনিয়া । বাপ-বেটার সম্পর্ক কম, বন্ধুত্ব ছিল বেশি । অথচ সরকারের দুর্নীতির লম্বা চক্রের ফাঁদে পড়ে তার এই দুনিয়াই একদিন হারিয়ে যায় তার জীবন থেকে । মুহুর্তের মধ্যেই যেন সব কিছু উলট পালট হয়ে যায় । বেঁচে থাকার ইচ্ছাও একসময় চলে যায় । কিন্তু না! এই অসীম শূন্যতাকেই শক্তিতে পরিণত করে নির্মল । স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর ছেলেকে অপহরণ করে পাল্টা আক্রমণের জানান দেয় । দাবি একটাই, তার নিজের ছেলেকে খুঁজে দেয়া । এভাবেই এগুতে থাকে গল্প । টিপিক্যাল রিভেঞ্জ মুভি মনে হলেও ভিন্ন স্বাদ পাবেন। ইরফান খানের অভিনয় নিয়ে বলার কিছু নাই । তবে এটাতে মনে হয় অন্য সবগুলোকে ছাড়িয়ে গিয়েছে । মুগ্ধতায় জাস্ট ডুবে যাবেন মুভিতে। রোহানের (যাকে অপহরণ করা হয়েছে) অভিনয়ও ছিল নজরকাড়া । নির্মল আর রোহানের কথোপকথনের সূক্ষ্ম রসবোধ ভাল লাগবে । ইরফান ভক্তদের জন্য মাস্ট ওয়াচ মুভি ।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *