shironamhin chithi
কথোপকথন ও চিঠিপত্র

শিরোনামহীন চিঠি – জুলকারিয়াম শুভ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রিয় রিমিল, 

তোমার পত্র পেয়েছি যখন শ্রাবণের শেষ সূর্যটুকুও প্রায় অস্তমিত। গগনে দেখা মিলেছিলো অসহায় কালো মেঘের টুকরো, যেন সে অবশিষ্টই রয়েছে শুধু আমাকে শেষ নমস্কার টুকু জানাবে বলে, আর সেই নমষ্কার নেওয়াটা যে আমার একদমই ভাগ্যে ছিলো না তা বুঝেছিলাম তোমার পত্র হাতে পেয়ে। এরপর…. এরপর সেই মেঘের টুকরোকেই বরণ করে নিলাম,  শুরু হলো অশান্ত বারি ধারা, প্লাবনে ভেসে যাচ্ছিলো  আমার ভেতর, আমার বাহির। 

ভেবেছিলাম, অনেক গুলো বর্ষা শেষে দেখা মিলবে এক বসন্তের, ফুল হয়ে ফুটে থাকবো যেন একটিবার হলেও আমার ঘ্রাণে বুঝবে অবহেলার অনলে পোড়া ছাই’এর গন্ধটুকু কতটা তীব্র। নয়তো, শরতের শেষ বিকেলে একবার হলেও আসবে কাশ-বনে, দেখবে ঝরে পরে আছি তোমার পায়ের কাছে, বুঝবে অপেক্ষা কখনোই সুখের হয়না। অথবা, যদি সেই সুযোগটুকুও পেতাম, তবে কোনো এক গ্রীষ্মের দুপুরে তৃষ্ণার্ত শঙ্খচিলের বেশে হলেও একবার এসে বসতাম তোমাদের উঠানের সেই ডালিম গাছে, মধ্য-দুপুরে তীর্যক রোদের মত অনেকটা নির্লজ্জের মত তাকিয়ে থাকতাম তোমার পানে।  করুণা করে হলেও একফোঁটা জল আমায় ছুড়ে দিয়ে বুঝতে কতটা-কাল এভাবেই তৃষ্ণার্তই থেকে গেলাম নির্মোহ নিঃসঙ্কোচিত হয়ে। এসব ছাড়া যথার্থই এক প্রেমিক হিসেবে, রবীন্দ্রনাথের কবিতায়, বা জয়নুলের রঙ-তুলির খেলায় তোমাকে খুজে পাওয়ার মত দুঃসাহস আমার কোনোদিনও হয়ে উঠেনি…..!! 

তুমি বলেছিলে প্রেম কেবল কষ্টেই সুন্দর হয়, যতক্ষন পর্যন্ত কষ্ট না আসবে প্রেমের সুন্দররূপ দেখা মিলেনা।  আর কত কষ্ট পেলে, আর কতকাল এভাবে জ্বললে তারপর আমার দরজায় এসে প্রেম সুন্দররূপে কড়া নাড়বে বলতে পারো.? আর  ঠিক কতটা ফুল এনে দিলে আমার ব্যকুলতা নিয়ে তোমার মালা গাঁথা শেষ হবে? আমার কাছে সবকিছুই কেমন যেন অজানায় রয়ে গেল,  অজানায় থাক তবে।

শুধুমাত্র এটুকুই জানা, আমার আর তোমার ধর্ম এক নয়!  তুমি ডাকো শ্রী-কৃষ্ণকে, আর আমি আল্লাহ’কে।  আর তুমি শুধুই এটুকুই আশ্বাস দিয়েছিলে একদিন সবাই জাগ্রত হবে, ধর্মের মায়াজাল থেকে বেড়িয়ে এসেও অন্যভাবে পৃথিবীকে দেখতে শিখবে!  

এই আশ্বাসটুকু আজও প্রশ্নরূপেই থেকে গেলো আমার কাছে, তবুও সত্যিই যদি জাগ্রত হয় কখনো, সেই আশা নিয়েই থেকে গেলাম। শুধু…

        “এইটুকুই অভিশাপ, হে ধর্মের সেনা.. 

         মৃতদেহ বয়ে ফিরবে। কবর পাবে না।”

তুমি বরাবরই উল্লেখ করেছো “আমি আমার সেই শুভ কে হারিয়ে ফেলেছি “। তো এই আমি কোন শুভ বলতে পারো..? যে তোমার পত্রটুকু নেওয়ার জন্যই অবশিষ্ট থেকে গেল এখন পর্যন্ত! যদি হয় একটু খানি সময়, তবে উত্তর টা নাহয় পরের পত্রেই জানিয়ে দিও, নয়তো তা অজানায় থেকে যাক অনন্তকাল পর্যন্ত। 

ইতি 

তোমার “শুভ ” 

(যে কিনা হারিয়ে, বহুকাল পেরিয়েছে)


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *