shironamhin kobita shongkolon 2
কবিতা

শিরোনামহীন কবিতা সংকলন (২) – রিয়াজুল আলম ভূঁইয়া

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

১.

যে দেখতে জানে, আমি তার সাধনা করি। এ হৃদয় বাসনারক্তিম। এ কান্না উদগীরণোন্মুখ।

দুধ মন্থনে উঠে আসে ঘৃত, তা আবার পুড়ায়। সুঘ্রাণ। 

শ্বাসে শ্বাসে জ্বলতে থাকে জীবন। কষ্ট থাকে চাপা। কাচ্চির মাংসের মতন দমে রান্না হোক বোধ। আহা বেদনানন্দ! 

যে জানে রন্ধনশৈলী, আমি তার আহ্বান করি। যে দেখতে জানে। জীবনচুল্লি জ্বলুক। আকাশে পুষ্পে জলে, সঞ্চারিত হোক পোড়া হৃদয়ের ঘ্রাণ।

২.

(মূল রচয়িতা : জালালুদ্দিন মুহাম্মাদ রুমি; অনুবাদ : লেখক)

মহাসাগরের বিশালতা দেখে তোমার কি বুক ফাটে?

কেন প্রেম দিতে এত করো সংকোচ?

মাছেরা রাখে না গেলাশের কোনো খোঁজ

অতল সলিলে মুক্ত সাঁতার কাটে।

৩.

ঘুমাইনি সারারাত। একটা কান্নার ঢেউ

আমাকে দোলাতে দোলাতে

রেখে গেছে ভোরের উপকূলে।

রোদ ওঠে, মুছে যায় শিশির ও চোখ

আমি যে দারুণ সুখী পৃথিবী দেখুক।

৪.

আপনারা যা বলছেন, তাই করছি

বিশ্বাস না হয়, আমার জুতাকে জিজ্ঞেস করুন।

ঘুরতে ঘুরতে কতবার ক্ষয়ে গেছে

কতবার তার গায়ে সুঁইয়ের সেলাই পড়েছে!

আমার গায়ে বেঁধা অপমানের মতো

জুতোও সব সয়ে নিতে জানে। 

যদি নিজের ইচ্ছামতোই চলতাম

কারো তোয়াক্কা না করে

তবে এতদিনে, এতগুলো জুতার অপমৃত্যুর পরে

আমার পায়ের জুতাগুলো শূণ্যে উঠে যেতো

আর কাকে যে খুঁজতো, কাকে যে খুঁজতো…

নিজের ইচ্ছায় চললে তবেই বলতে পারতাম।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *