bewarish ek lasher jonno koruna
কবিতা

বেওয়ারিশ এক লাশের জন্য করুণা! – শ্রী অভীক চন্দ্র তালুকদার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমি মূলত প্রেমিকার স্ফীত বুক হতে চেয়েছিলাম, 

কিন্তু, ল্যাম্পপোস্ট-গোড়ায় মরে পরে থাকা 

দাঁড়কাকের মতন পিষে যাওয়া শরীর দেখতে আমার নিজেরই ঘেন্না লাগছিল, 

অথচ নিজের শিশ্নের উত্থিত রুপে আমি নিজেই মুগ্ধ হতাম।

মৃতদেহে আমার লোভ নেই,

নারীর শরীর আমার মৃতদেহ লাগতো,

কিন্তু আমি বন্দনা করতাম,  

প্রার্থনা করতাম, 

আমি জানতে চাইতাম, এক খণ্ড মাংস পুড়িয়ে খেতে খেতে, 

আমাকে কেনো মরতে হবে? 

আমি তো সঙ্গমের শিৎকার করছি না,

তবুও প্রেমিকার বুক আমার ভালো লাগে হাত দিয়ে ছুঁয়ে দিতে মন চায়- 

আমি কাছে যাই, 

শ্বাস ঘন থেকে ঘনতর হয়, আমি দৌড়ে ফিরে আসি! 

আমি আপেল তত্ত্বে অবিশ্বাসী নই- 

আমি গাছগায়ে হাত বুলিয়ে- 

ঘাসের পিঠে পিঠ ছুঁইয়ে করি এবাদত! 

আমার প্রেমিকা আছে, 

তার স্ফীত বুক আমি হতে চাইতাম- 

আমার হিংসা হতো! 

একদিন স্বপ্নে, 

আমার আমি আসলাম, 

ভুল, 

একদিন স্বপ্নে আমার তুমি আসলে, 

বসলে পাশে, 

তোমার নিচের ঠোঁটে ঠিক একটা তিল ছিল- 

আমার মতন, আমি জ্বলছিলাম,পুড়ছিলাম, 

তোমাকে আমার পুড়িয়ে খেতে ইচ্ছে করছিল,

চুমুতে মাখিয়ে খেতে ইচ্ছে করছিল ঠোঁট,

তোমার বুকে হাত দিলে আমি চমকে উঠেছিলাম, 

তোমার বুক কোথায়- 

সেখানে এমন পুড়ে যাওয়া ছাই ক্যানো? তোমার বুক পুড়ে যাওয়া ছাই? 

আমি নিজের বুকে হাত দেই, 

দেখি ঠিক প্রেমিকার বুকের মতন বুক, 

আমি নিজের বুকে ছাই মাখি,

আমার তখন ময়ূরীর মতন চোখ চকচক করছে, 

আমি মনে মনে বৃষ্টি বন্দনা করি, 

“হে বৃষ্টি,তুমি এক ও অদ্বিতীয়া, তুমি সৃষ্টি,তুমি বিনাশ,তোমাতে শুরু,তোমাতে শেষ,আমাদের তুমি সজীব করো,আমাদের তুমি শান্ত করো,শান্তি, শান্তি,শান্তি।”

আমি তোমার মাথাটা গিলে নি,

তোমার পরিচয় আমি বুকে ধারণ করে নি,

স্ফীত বুকে ছাই মাখা হয়ে পরে থাকি তোমার শরীর জুড়ে, 

তোমার কবর হয় না, 

আমার দহন হয় না,

আমরা পরে থাকি বেওয়ারিশ এক লাশ হয়ে,

ঘেন্না হয়- 

পুরুষ ঘাস ফড়িং এর জন্য, 

ময়ূরের মেঘনৃত্যের জন্য, 

প্রেমিকার বুকের মতন বুকের জন্য,

করুনা হয়, 

আমাদের জন্য!

আমার জন্য! 


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *