ami manusher kanna
কবিতা

আমি মানুষের কান্না – অনিন্দ্য বিশ্বাস

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিষাক্ত ধোঁয়ায় চারিদিক ঝিমিয়ে পড়েছে-

নেতিয়ে পড়েছে রক্তের আগ্রাসী চুম্বন,

প্রেমিকের চোখ জুড়ে বিষণ্ণ এসময়,

“আমি মানুষ” বলা মানুষেরও যেন মানুষ হওয়ার ভয়!

এক অদৃশ্য হিমালয়ে চড়ার নৃশংস প্রতিযোগিতায় মেতে উঠেছে

                             কিছু শকুনের বাচ্চা-

যেখানের অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যু ঘটে মানব আত্মার!

আর সত্তার উপস্থিতি অস্বীকার করে বোকার চক্রে ঘুরপাক খাওয়া হয়।

কুম্ভমেলার বাঁদরখেলা দেখতে দেখতে

পথিক চলে যায় তেপান্তরের পানে।

রেখে যায় অন্ধকারে মোড়া কিছু মাংসপিণ্ডের সংকলন।

তবু জাগে না হৃৎস্পন্দন!জাগে না আত্মার হুংকার!

জাগে ভীতুর মতো লুকিয়ে যাওয়া বোবা চিৎকার।

তারপর?

তারপর প্রেমিককে করা হলো খাঁচায় বন্দি,

ভেঙে দেওয়া হলো কবির কলম;

স্বদেশীর হাত কেটে বানানো হলো কারাগারের দেয়াল।

মগজভরা হেমলক দিয়ে বানানো হলো রঙিন ফোয়ারা।

গায়ককে হত্যা করা হলো গলা টিপে।

ভয় সেও ভয় পায় এমন বিধ্বস্ত শরীর দেখে!

সাইক্লোনের শক্তি দিন দিন হ্রাস পেতে থেকে,

হ্রাস পেতে থাকে টর্ণেডোর গুড়িয়ে দেওয়া বিক্ষোভ কিংবা

প্রতিরোধ, প্রতিকার অথবা প্রতিষেধক!

তবু মানুষ হওয়া হয় না,

হওয়া হয় না ইতিহাসের প্রতিশ্রুতি।

সব শালা আরশোলা, নিজের উপরেও নিজের লাগে না ঘেন্না,

তুই শালা মানুষ নস, অতীত মানুষের কান্না।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *